জলবায়ু পরিবর্তন চেনে না কোনো ধনী-গরিব

49
Smiley face

সাতক্ষীরার শ্যামনগর উপজেলার গাবুরার নাম শুধু বাংলাদেশ কেন দুনিয়ায় জলবায়ু পরিবর্তন নিয়ে যারা কাজ করেন তাদের অনেকের কাছেই পরিচিত৷ সেই গাবুরার ধনী-গরিব সবাই জলবায়ু পরিবর্তনের নেতিবাচক প্রভাবের শিকার৷

ওই এলাকার মানুষ ঘূর্ণিঝড় আইলার পর আর দাঁড়াতে পারেনি৷ পানীয় জলের অভাব৷ পুকুরে লবণ পানি ঢুকে গেছে৷ ফসলের ক্ষেতে লবণ পানি ঢুকে ক্ষেত বন্ধ্যা করে ফেলেছে৷

ফসল ফলে না৷ যারা এলাকা ছাড়তে পেরেছেন তারা চলে গেছেন৷ যারা ধনী তারা শহরে গিয়ে বাসা ভাড়া করে থাকছেন৷ যারা গরিব তারাও কোনো না কোনো শহরে গিয়ে বস্তিতে আশ্রয় নিয়েছেন সপরিবারে৷ তারা কাজ হারিয়েছেন৷ জমি হরিয়েছেন৷ ঘরবাড়ি হারিয়েছেন৷ তারা এখন জলবায়ু উদ্বাস্তু৷

দেশের দক্ষিণের জেলাগুলোতে এখন জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব খুবই সুস্পষ্ট৷ বিশেষ করে উপকূলীয় জেলাগুলোতে পানীয় জলের কষ্ট তীব্র থেকে তীব্রতর হচ্ছে৷ গভীর নলকূপেও পানি পাওয়া যাচ্ছেনা৷

কিছু এনজিও বৃষ্টির পানি ধরে রাখার ব্যবস্থা করে দিচ্ছে৷ আবার সবাই মিলে দুই-একটি পুকুরের পানি রক্ষা করে তা পানের চেষ্টা করছেন৷ আর এই পানি সংকট নারীদের সবচেয়ে বেশি বিপর্যস্ত করছে৷

কারন তারা পানির অভাবে পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন থাকতে পারছেন না৷ ফলে নানা রোগে আক্রান্ত হচ্ছেন৷ লবণ পানির কারণে এখন ওইসব এলাকার প্রতি তিনজনে একজন উচ্চ রক্তচাপে আক্রান্ত৷

বিশ্বের তাপমাত্রা বৃদ্ধি দেড় ডিগ্রি সেলসিয়াসের নীচে রাখার চেষ্টায় প্রতিটি দেশ তাদের পরিকল্পনা জাতিসংঘে জমা দিয়েছে৷ বাংলাদেশ ২০৩০ সালের মধ্যে কার্বন নিঃসরণ ২১.৮৫ শতাংশ কমানোর পরিকল্পনা করছে৷

বাংলাদেশ জানিয়েছে, যদি নিঃসরণ কমানোর জন্য বিশেষ কোনো উদ্যোগ না নেওয়া হয় তাহলে ২০৩০ সাল নাগাদ ৪০৯.৪ মিলিয়ন টন গ্রিনহাউজ গ্যাস নিঃসরণ করবে৷ তবে পরিকল্পনা বাস্তবায়ন সম্ভব হলে নিঃসরণ ৩১৯.৯৪ মিলিয়ন টনে নামানো যাবে৷

বছরের পর বছর ঝড়-জলোচ্ছ্বাস বেড়ে যাচ্ছে৷ অকাল বন্যা হচ্ছে৷ সাতক্ষীরার অনেক এলাকা এখন পানির নিচে ৷ নদী, বিল আর পুকুর একাকার হয়ে যাচ্ছে৷ ফসল নেই৷

বাড়ছে নদী ভাঙ্গন৷ আর জলোচ্ছাস বেড়ে যাওয়ায় উপকুলের বেড়িবাঁধ ভেঙ্গে যাচ্ছে৷ ফলে লবণ পানি ঢুকে যেমন চাষের জমি নষ্ট করছে৷ তেমনি মানুষের আশ্রয় হরিয়ে যাচ্ছে৷ যারা কৃষির ওপর নির্ভর করে জীবন চালাতেন তারা আর কাজ পাচ্ছেন না৷ তারা ছুটছেন শহরে৷ কেই সপরিবারে৷ কেউ পরিবার রেখে একা৷

তারা যে শুধু ঢাকায় আসছেন তা নয়৷ তারা বিভাগীয় শহরেও যাচ্ছেন৷ যাচ্ছেন জেলা শহরে৷ যারা পারছেন না তারা বেড়িবাঁধে অস্থায়ী বসতি গড়ছেন৷ নগরের বস্তি এখন গ্রামেও৷ বেড়িবাঁধের উপরে৷

আমার গ্রামের বাড়ি দক্ষিণের একটি জেলায় নদী তীরবর্তী উপজেলায়৷ সেখানে প্রবিছরই বেড়িবাঁধ ভেঙে যায়৷ গত শীতে গিয়ে দেখেছি খেসারির ডালের ক্ষেত হলুদ হয়ে গেছে৷ জানতে পারলাম লবণ পানি ঢুকে এই অবস্থা৷

ধানও আগের মতো আর হয় না৷ নদীর তীরে বানানো গুচ্ছগ্রামের ঘরও পানিতে ভেসে গেছে৷ আর পানির কষ্ট তো আছেই৷ তবে রেইন হারভেস্টিং কিছুটা হলেও পানীয় জলের কষ্ট কমিয়েছে৷

বিশ্বব্যাংকের হিসেবে ২০৫০ সাল নাগাদ জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবে বাংলাদেশের উপকুলীয় এলাকার এক কোটি ৩৩ লাখ মানুষ তাদের আবাস্থল হারাবেন৷

পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম সম্প্রতি এক ভার্চুয়াল সেমিনারে বলেছেন, এরইমধ্যে বাংলাদেশের এক কোটি মানুষ জলবায়ু উদ্বাস্তে পরিণত হয়েছেন৷

বিশ্বব্যাংকের হিসাব বলছে, বাংলাদেশে এখন প্রতিবছর চার লাখ মানুষ শহরে চলে আসছেন স্থায়ীভাবে৷ এই সংখ্যা প্রতিদিন দুই হাজারের মত৷ তাদের মধ্যে শতকরা ৭০ ভাগ জলবায়ু উদ্বাস্তু৷

এই সপ্তাহেই কথা হয়েছে বাগেরহাটের মোংলা উপজেলার একজন পরিবেশ কর্মীর সঙ্গে৷ তিনি স্পষ্ট করেই বলেন, জলবায়ু পরিবর্তনের নেতিবাচক প্রভাব ধনী-গরিব দেখছেনা৷ স্বাস্থ্যের ওপর যে নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে তা থেকে কেউই রেহাই পাচ্ছেনা৷

তার মতে প্রতিদিনই জলবায়ু উদ্বাস্তু হচ্ছে মানুষ৷ কাজ হারিয়ে কেউ খুলনা যাচ্ছেন৷ কেউ নারায়ণগঞ্জ, কেউ ঢাকা৷ সেখানে কাজ না পেলে রিকশা চালাচ্ছেন৷


Smiley face