মহাকাশে যাতায়াত এখনো জটিলতায় ভরা

34
Smiley face

মহাকাশে মানুষ পাঠানো যত সহজ, তাদের পৃথিবীতে ফিরিয়ে আনা ততই কঠিন৷ এর কারণ কী?

বাস্তবে বিষয়টি অনেক জটিল৷ মহাকাশের উদ্দেশ্যে যাত্রা ও সেখান থেকে ফেরার প্রক্রিয়ার সঙ্গে একেবারে ভিন্ন চ্যালেঞ্জ ও বিপদ জড়িয়ে রয়েছে৷ পৃথিবী থেকে যাত্রা শুরু করার সময় রকেটকে মাধ্যাকর্ষণ শক্তির বাঁধনমুক্ত হতে হয়৷ বিশাল পরিমাণ জ্বালানি ব্যবহার করে ‘রিকয়েল প্রিন্সিপল’ কাজে লাগিয়ে রকেট সেই কাজ করে৷

রকেট আসলে অনেকটা বাতাস ছাড়তে থাকা বেলুনের মতো ধেয়ে যায়৷ তবে রকেটের কিন্তু  বেলুনের মতো শূন্যে বন বন করে ঘোরার অবকাশ নেই৷ নড়াচড়া করতে পারে এমন সুইভেলিং ইঞ্জিন এবং থ্রাস্টার রকেটকে সঠিক দিশায় এগিয়ে নিয়ে যায়৷ বিশেষভাবে তৈরি এক ন্যাভিগেশন সিস্টেম দিকনির্ণয় করে৷ তা সত্ত্বেও বার বার দুর্ঘটনা ঘটে৷

যেমন ২০১৪ সালে উৎক্ষেপণের কয়েক সেকেন্ডের মধ্যে আন্তারেস নামের এক রকেটে আগুন ধরে যায়৷ ফলে আন্তর্জাতিক স্পেস স্টেশনে রসদ পাঠানোর যানটিও ধ্বংস হয়ে যায়৷

মহাকাশচারীদের ক্যাপসুল পৃথিবীর কক্ষপথে পৌঁছে গেলেও আইএসএস পর্যন্ত পৌঁছানো বড়  চ্যালেঞ্জ৷ বোর্ড কম্পিউটার ইঞ্জিন নিখুঁতভাবে চালু করে ক্যাপসুলটিকে সবার আগে আরও উচ্চতায় নিয়ে যায় এবং আইএসএস-র সঙ্গে যানটির গতির সামঞ্জস্য নিশ্চিত করে৷ সামান্য ত্রুটি হলেই সংঘর্ষের আশঙ্কা থাকে৷ জরুরি অবস্থা দেখা দিলে মহাকাশচারীদের সরাসরি সেই প্রক্রিয়া নিয়ন্ত্রণ করতে হয়৷

এবার পৃথিবীতে ফেরার পালা৷ মহাকাশচারীদের নিয়ে স্পেস ক্যাপসুল আইএসএস থেকে বিচ্ছিন্ন হবার পর ঘণ্টায় ২৮,০০০ কিলোমিটার বেগে ধেয়ে যায়৷ ফলে সবার আগে সেটির গতি কমাতে হয়৷ যথেষ্ট দূরত্ব থাকতে থাকতে গতি কমাতে ইঞ্জিন চালু করা হয়৷ এভাবে কক্ষপথ ত্যাগ করা যায়৷

ক্যাপসুলের অপ্রয়োজনীয় অংশ ফেলে দেওয়া হয়৷ পৃথিবীর বায়ুমণ্ডলে প্রবেশের সময় আদর্শ গতি নিশ্চিত করতে হয়৷ সেইসঙ্গে সঠিক অ্যাঙ্গেলও জরুরি৷ ক্যাপসুলের গতি অত্যন্ত কম হলে এবং অ্যাঙ্গেল বেশি সমতল হলে যানটি পাথরের মতো সমুদ্রে আছড়ে পড়বে এবং আবার মহাকাশের দিকে ছিটকে যাবে৷

অন্যদিকে গতিবেগ খুব বেশি হলে এবং ওড়ার পথ বেশি খাড়া হলে মহাকাশ ক্যাপসুলের হিট শিল্ডের উপর মাত্রাতিরিক্ত চাপ দেখা যাবে৷ ভেতরে মহাকাশচারীরা আগুনে পুড়ে যাবেন৷ কারণ বায়ুমণ্ডলে প্রবেশের সময় ক্যাপসুলটিকে জোরে ব্রেক করানো হয়৷ সেই ঘর্ষণের ফলে প্রবল উত্তাপ সৃষ্টি হয়৷ ২,০০০ ডিগ্রি সেলসিয়াস পর্যন্ত তাপমাত্রা সামলাতে হয়৷ তারপর প্যারাশুট খুলে গেলে যানের গতি আরও কমতে থাকে৷

মাটির কাছাকাছি আসার ঠিক আগে রাশিয়ার স্পেস ক্যাপসুলের বিশেষ ইঞ্জিন চালু হয়ে যায়৷ তখন ঘণ্টায় পাঁচ কিলোমিটার বেগে যানটি নিরাপদে ভূ-পৃষ্ঠে অবতরণ করতে পারে৷

মার্কিন মহাকাশ সংস্থা নাসাকে শেষ পর্যায়ে ব্রেকের বিষয়ে ভাবতে হয় না৷ কারণ মার্কিন স্পেস ক্যাপসুলগুলি পানির উপর নামে৷ ফলে সংঘাতের আশঙ্কা থাকে না৷


Smiley face