ফাঁস হওয়া প্রশ্নে ডেন্টালে ভর্তি হয়েছেন ৪ হাজার শিক্ষার্থী

Smiley face

রিমান্ডে থাকা তিন আসামি ফাঁস করা প্রশ্নপত্রে মেডিকেল ও ডেন্টাল কলেজে ভর্তি হওয়া ৭৮ জন শিক্ষার্থীর নামের তালিকা সিআইডিকে দিয়েছেন । ওই সব শিক্ষার্থী প্রশ্নপত্র ফাঁস চক্রের প্রধান ব্যক্তি জসিমউদ্দিন ও চক্রের অপর দুই সদস্যকে সাড়ে চার কোটি টাকা দিয়েছিলেন।

রিমান্ডে থাকা প্রশ্নপত্র জালিয়াতি চক্রের জসিম, সদস্য পারভেজ খান ও জাকির হোসেনকে জিজ্ঞাসাবাদে এসব তথ্য পেয়েছেন বলে জানিয়েছেন পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগের (সিআইডি) তদন্ত-সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা। মামলার তদন্ত করছে, এমন একটি সূত্র জানিয়েছে, এই চক্রটির ফাঁস করা প্রশ্নপত্রে পরীক্ষা দিয়ে ২০১৩ সাল থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত অন্তত চার হাজার শিক্ষার্থী বিভিন্ন মেডিকেল ও ডেন্টাল কলেজে ভর্তি হয়েছেন।

পাবলিক পরীক্ষা আইনে করা মামলায় এই তিন আসামি এখন সাত দিনের রিমান্ডে আছেন। আজ শুক্রবার তাঁদের রিমান্ডের প্রথম দিন ছিল।

সিআইডির জ্যেষ্ঠ সহকারি পুলিশ সুপার সুমন কুমার দাস জানান, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের প্রেস থেকে প্রশ্নপত্র ফাঁস করতেন মেশিনম্যান আবদুস সালাম। তাঁর খালাতো ভাই জসিমউদ্দিন তা সারা দেশে ছড়িয়ে দিয়ে শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে মোটা অঙ্কের টাকা হাতিয়ে নিতেন। সালাম ও জসিম সারা দেশে একটি বিশাল চক্র গড়েছিলেন। সালাম পলাতক। সালামসহ চক্রের পলাতক অর্ধশত সদস্যদের খোঁজ পেয়েছেন তাঁরা। রিমান্ডে থাকা তিন আসামির কাছ থেকে ৭৮ শিক্ষার্থীর দেওয়া চেকের তথ্য পাওয়া গেছে।

প্রশ্নপত্র নিয়ে মেডিকেল-ডেন্টালে ভর্তি হওয়া শিক্ষার্থীদের খোঁজ করতে গেলে করোনার জন্য কলেজের হোষ্টেল বন্ধ থাকায় সবাই গ্রামের বাড়ি চলে গেছে।  প্রশ্নপত্র ফাঁস চক্রের কয়েকজন সদস্যকে ধরতেও রাজধানীর বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালানো হয়। বৃহস্পতিবার রাতভর এসব অভিযান চালিয়ে কাউকেই পাওয়া যায়নি। এখন জালিয়াতি করে ভর্তি হওয়া শিক্ষার্থীদের গ্রামের বাড়ির ঠিকানা সংগ্রহ করে সেখানে অভিযান চালানো হবে।

২০১৭ সালের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশ্নপত্র জালিয়াতির তদন্ত করতে গিয়ে ২০১৩, ২০১৫, ২০১৭ সালের মেডিকেল-ডেন্টালের এই সব গুরুত্বপূর্ণ তথ্য বের হয়ে আসে। তথ্যের ভিত্তিতে জসিম উদ্দিন ওরফে মন্নু, পারভেজ খান, জাকির হোসেন মোহাইমিনুলকে গ্রেপ্তার হয়।

(সূত্রঃ প্রথম আলো)

(মনিরুল, ফ্লাশ নিউজ টিম)


Smiley face