রাজশাহীতে শীতের তীব্রতা বেড়েছে

25
Smiley face

রাজশাহীতে শীতের তীব্রতা আরও বেড়েছে। উত্তরের এ জেলায় মৃদু শৈত্যপ্রবাহ অনুভূত হচ্ছে।

কনকনে শীতে বেকায়দায় পড়েছেন ছিন্নমূল মানুষ।

শনিবার (২৬ ডিসেম্বর) রাজশাহীতে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ৯ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এদিন বিকেলে বায়ুর আর্দ্রতা ছিলো ৯৬ শতাংশ।

কনকনে শীতের সঙ্গে উত্তরের ঠাণ্ডা বাতাসে বিপর্যস্ত জনজীবন। সকালে ঘন কুয়াশার চাঁদার ভেদ করে ভোরের সূর্যের দেখা মিলছে। সকালের দিকে ঠাণ্ডা বাতাস না থাকলেও বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে হিমবায়ু বইতে শুরু করে। যা সারাদিন ধরেই চলতে থাকে। ফলে সূর্য উঠলে শীতের দাপটে তার তেজ থাকে না।

শীতবস্ত্রের অভাবে চরম কষ্টে দিন যাপন করছেন ছিন্নমূল মানুষগুলো। অনেকে খড়কুটো জ্বালিয়ে শীত নিবারণের চেষ্টা করছে। কাজের সন্ধানে সকাল সকাল ঘর থেকে বের হওয়া মানুষগুলোও ভোগান্তিতে পড়ছেন। সবচেয়ে বিপাকে পড়েছেন কৃষকরা।

রাজশাহী আবহাওয়া অফিস জানিয়েছে, গত কয়েকদিন ধরে মৃদু শৈত্যপ্রবাহ চলছে রাজশাহীতে। গত রোববার (২০ ডিসেম্বর) সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয় ১০ দশমিক ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস। সোমবার (২১ ডিসেম্বর) রাজশাহীতে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয় ১১ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

মঙ্গলবার (২২ ডিসেম্বর) সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিলো ১২ ডিগ্রি সেলসিয়াস। বুধবার (২৩ ডিসেম্বর) সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয় ১৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস। বৃহস্পতিবার (২৪ ডিসেম্বর) তাপমাত্রা আরও ১ ডিগ্রি কমে যায়। শুক্রবার (২৫ ডিসেম্বর) সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয় ১০ দশমিক ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

রাজশাহী আবহাওয়া অধিদপ্তরের সিনিয়র পর্যবেক্ষক আব্দুস সালাম বলেন, বর্তমানে রাজশাহীতে মৃদু শৈত্যপ্রবাহ চলছে। চলতি মাসের শেষ পর্যন্ত তাপমাত্রা ওঠানামা করতে পারে। জানুয়ারিতে আরও কয়েকটি শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যেতে পারে।

এদিকে শীতের প্রভাবে সকাল ও সন্ধ্যার পর ভোগান্তিতে পড়েছেন খেটে খাওয়া মানুষ। শীতে নিম্নআয়ের মানুষ পড়েছেন চরম সংকটে। পরিবার-পরিজন নিয়ে তারা চরম কষ্টে দিনযাপন করছেন। শীত সহ্য করতে না পেরে অনেকেই অসুস্থ হয়ে পড়ছেন।


Smiley face