“বাংলাদেশকে মারতে গিয়ে আমরা মরে যাচ্ছি”

10
Smiley face

দর্শক সারোয়ার হোসেন ডয়চে ভেলের ফেসবুক পাতায় লিখেছেন, “চমৎকার একটি বিশ্লেষণধর্মী প্রতিবেদন৷ তিস্তার অতিরিক্ত বাঁধ দুই দেশের মানুষেরই ক্ষতির কারণ তা প্রতিবেদনে স্পষ্ট ৷ তিস্তা নিয়ে কিছু রাজনৈতিক নেতা অযথা জল ঘোলা করছে, আশাকরি ভারতবাসী তা  বুঝতে পারবে ৷”

ভিডিওতে ভারতের পরিবেশবিদ তার মতামত জানাতে গিয়ে বলেন, বাংলাদেশকে মারতে গিয়ে আমরা মরে যাচ্ছি’ ৷ পাঠক জাকির আল ফারুকী পরিবেশবিদের একথার জের ধরে লিখেছেন, “তিনি ভালো বলেছেন, ‘ বাংলাদেশকে মারতে গিয়ে আমরা মরে যাচ্ছি’ মোদি, আর এস এস আর বিজেপি কবে বুঝবে? ফারাক্কা, তিস্তা, গাজলডোবা বাংলাদেশকে মারার কল, তবে সেই কলে এখন তারাও মরছে৷”

“বাংলাদেশ চীনের বাঁধ নির্মাণ প্রস্তাব গ্রহণ করলে ক্ষতি হবে লক্ষ লক্ষ ভারতবাসীর৷ তাই এখনই মমতা পিসি মাথায় সুবুদ্ধি আসা উচিত৷” তিস্তা নিয়ে বিশ্লেষণধর্মী ভিডিও দেখে দর্শক তন্ময় চক্রবর্তী এই মন্তব্য করেছেন৷

“খুব সুন্দর প্রতিবেদন৷ অনেক গুরুত্বপূর্ণ  টপিক নিয়ে রুট লেভেল থেকে আলোচনা করার জন্য ধন্যবাদ ৷” ফেসবুক পাতায় এই মন্তব্য মো. আবদুল কাইয়ুমের৷

দর্শক স্বপন মনে করেন ভিডিও প্রতিবেদনটি থেকে অনেক কিছু জানার এবং শেখার আছে! তার বিশ্বাস, প্রকৃতিকে তার নিজস্ব গতিতে চলতে দেওয়া উচিত, এর গতি রোধ করলে ধ্বংস অনিবার্য৷ তিনি লিখেছেন,  “চমৎকার বিশ্লেষণ! মৌমাছিকে কৌশলে নিরাপদ দূরত্বে সরিয়ে দিয়ে তারপর মধু সংগ্রহ করতে হয়, এতে বার বার সুফল পাওয়া যায়৷ ওদের জ্বালিয়ে, পুড়িয়ে, মেরে ফেলে নয়! ”

ভিডিও প্রতিবেদনটির প্রকাশের জন্য ইতিবাচক মন্তব্য করে ডয়চে ভেলেকে ধন্যবাদ দিয়েছেন দর্শক হাবিবুল্লাহ সুসম, শিবলু রহমান, সোহানুর রহমান সোহাগ, রুহুল আজিজ চৌধুরী, তাজুল, শাকিল পাটোয়ারী, সুবেল আহমেদ, এইচএম মিলনসহ অনেকেই৷

আর মো.ইয়ারুল ইসলামের পরামর্শ  উভয় দেশের সরকার সম্মিলিত হয়ে ভালো একটা মহাপরিকল্পনা গ্রহণ করলে উভয় দেশের মানুষই লাভবান হতে পারে৷ আর  সাধারণ মানুষ তা আশাও করেন৷ মো. কাদিরের ধারণা তিস্তার পানি নিয়ে ভারত যতটা না সাম্প্রদায়িক, তারচেয়ে বেশি সাম্প্রদায়িক মমতা ব্যানার্জি৷

অবশ্য বাংলাদেশের সীমানায় চীনের সহায়তায় যে তিস্তা ব্যারেজ প্রকল্পের পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে তার দ্রুত বাস্তবায়ন চান মর্তুজা চৌধুরী ৷ “রিপোর্টটি দেখে আমরা এখন অন্তত এটা জানি যে তিস্তা ব্যারেজের কারণে ভারতীয়রাও ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে৷” মন্তব্যটি ডয়চে ভেলের পাঠক  দেলোয়ার হোসেনের৷

এদিকে দর্শক শাহ পরান মনে করেন, রাজনৈতিক কারণে গুরুত্বপূর্ণ তিস্তা সমস্যাটি এখনও সমাধান হয়নি ৷ ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যে আলোচনা চললেও মোটেও তা কার্যকর হচ্ছে না ৷ জনগণের সুবিধার কথা বিবেচনা করে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব উভয় দেশের সরকারের উচিত সমস্যাটি সমাধানের জন্য কঠোর পদক্ষেপ নেওয়া৷

সবশেষে আশরাফুল ইসলাম পায়েল বলছেন, ” তিস্তার পানিই হয়ত ভারত, বাংলাদেশের বন্ধু অথবা শত্রুর শেষ সীমানা দেখাবে৷”

সংকলন: নুরুননাহার সাত্তার

সম্পাদনা: খালেদ মুহিউদ্দীন


Smiley face