রহস্যে মোড়ানো এক অন্যরকম থ্রিলার ছবি:ব্যাচ ২০০৩

27
Smiley face

রোমান্টিক গল্পের বাইরে অ্যাকশন কিংবা থ্রিলারধর্মী কাজে দর্শকদের আগ্রহ সবসময়ই তুঙ্গে থাকে। সম্প্রতি দেশীয় ওটিটি প্লাটফর্মে মুক্তি পেয়েছে সাইকোলজিক্যাল থ্রিলার সিনেমা ‘ব্যাচ ২০০৩’। পার্থ সরকারের পরিচালনায় এতে অভিনয় করেছেন আবদুন নূর সজল, তাসনুভা তিশা, নওশাবা, শিপন প্রমুখরা।

এখন পর্যন্ত দেশে অনেক থ্রিলার গল্পেই সিনেমা নির্মিত হয়েছে। সেদিক থেকে ‘ব্যাচ ২০০৩’ যেন এক অন্যরকম বার্তা নিয়ে এসেছে দর্শকদের জন্য। স্কুল, কলেজ কিংবা বিশ্ববিদ্যালয়ে একটা শব্দ বেশ প্রচলিত রয়েছে, সেটা হলো ‘র‍্যাগিং/বুলিং’। র‍্যাগিংয়ের কারণে বিভিন্ন সময়েই অনেক ছাত্র-ছাত্রী কিংবা বন্ধুকে বিব্রতকর অবস্থায় পড়তে হয়েছে। কোন কোনো সময় সেটির মাত্রা অনেক বেশি-ই ছাড়িয়ে গিয়েছে যা অনেকের জীবনে কাল হয়ে দাঁড়িয়েছে। ঠিক এরকমই গল্প নিয়ে নির্মিত হয়েছে ‘ব্যাচ ২০০৩’ সিনেমা। গল্পের পরতে পরতে রয়েছে বিভিন্ন সাসপেন্স। আগে থেকে বোঝার উপায় নেই কী হতে যাচ্ছে।

প্রায় দেড় যুগেরও বেশি সময় ধরে রোমান্টিকতায় দর্শক আকৃষ্ট করে আসলেও এবারই প্রথম খল হয়ে দেখা দিলেন অভিনেতা সজল। রোমান্টিক ইমেজের বাইরেও যে তিনি অনবদ্য এই ছবিতে তিনি যেন সেটা আবারও প্রমাণ করলেন। এখানে তার অভিনয় অবশ্যই প্রশংসার দাবিদার। নিজেকে নতুন করে ভেঙ্গেছেন এ অভিনেতা। সাফল্য স্বরূপ সিনেমা মুক্তির পর হচ্ছেন প্রশংসিত।

সজল ছাড়াও ছবির অন্যান্য চরিত্রগুলোর অভিনয়ও ছিলো প্রশংসা করার মতো। তিশা, শিপন, নওশাবা, তন্ময়, মৌসুমরা প্রত্যেকে যার যার যায়গায় ভালো ছিলেন।

অভিনয়ের পাশাপাশি নির্মাণও প্রশংসনীয়। নির্মাণে অবশ্যই মুন্সিয়ানা দেখিয়েছেন নির্মাতা পার্থ।

রাফায়েল হসানের গল্প অবলম্বনে নির্মিত এ সিনেমাটি এরমধ্যেই দর্শকদের প্রিয়র তালিকায় উঠে এসেছে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সর্বত্রই ছবিটির প্রশংসা দেখা যাচ্ছে। বলা যায়, রহস্যে ঘেরা এ সিনেমাটি ইতিমধ্যে দর্শকমহলে ব্যাপক সাড়া ফেলেছে।


Smiley face